Category Archives: সংগ্রাম-ঐতিহ্য
স্মরণ : বাংলার হারিয়ে যাওয়া জেমস বন্ড

আজাদুর রহমান চন্দন

১৯৭১ সালে অবরুদ্ধ বাংলাদেশে হানাদার পাকিস্তান সেনাবাহিনীর নজরদারি ও নিয়ন্ত্রণ সবচেয়ে বেশি ছিল রাজধানী ঢাকায়। নগরীতে সেনাবাহিনীর সার্বক্ষণিক টহল তো ছিলই, তার ওপর নগরবাসীর কাছে আরেক আতঙ্ক ছিল অবাঙালি বিহারিরা। শহীদ জননী জাহানারা ইমামের ভাষায়, ‘প্রায় প্রায়ই গুজবের ঢেউ এসে আছড়ে পড়ে– মোহাম্মদপুর-মিরপুর থেকে বিহারিরা দলে দলে বেরিয়ে পড়ে এদিকপানে আসবে। একটা তাৎক্ষণিক হৈচৈ পড়ে যায় চারপাশে।’ পাকিস্তানি জল্লাদ বাহিনী, বিহারি আর স্থানীয় রাজাকার-আলবদরদের হাতে পুরোপুরি নজরবন্দি অবস্থায় ছিল ঢাকায় থেকে যাওয়া বাঙালিরা। এক শ্বাসরুদ্ধকর পরিবেশ– রাত নামলেই ব্ল্যাকআউট, কারফিউ আর বাড়ির দরজায় আতঙ্কজনক কড়ানাড়া, বাড়ি বাড়ি তল্লাশি। এমন এক অবরুদ্ধ, অন্ধকার, আতঙ্কের নগরীতে একরাশ আলোর ঝলকানি ছড়িয়ে দিয়েছিলেন একদল মুক্তিপাগল মেধাবী তরুণ বাঙালি। তাঁদের দলের নাম ছিল ক্র্যাক প্লাটুন। অনেকেই বলত ‘বিচ্ছু বাহিনী’। বদি, রুমী, জুয়েল, স্বপন, কামাল, আজাদ, আলম, আলতাফ মাহমুদ… একঝাঁক উজ্জ্বল তারকা নিয়ে গঠিত হয়েছিল সেই বিচ্ছু দল। তাঁদের কেউ নামকরা ছাত্র, কেউ সুরকার, কেউ খেলোয়াড়।

ক্র্যাক প্লাটুন বা বিচ্ছু বাহিনী বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালীন পাকিস্তান সেনাবাহিনী ও তাদের দোসরদের বিরুদ্ধে ঢাকা শহরে গেরিলা আক্রমণ পরিচালনাকারী একদল তরুণ মুক্তিযোদ্ধার সংগঠিত দল, যে দলটি তখন কিংবদন্তীতে পরিণত হয়েছিল। এই দলটি গড়ার ক্ষেত্রে প্রধান ভূমিকা পালন করেছিলেন সেক্টর কমান্ডার খালেদ মোশাররফ (বীর উত্তম) ও এটিএম হায়দার (বীর উত্তম)। এই বাহিনীর সদস্যরা ভারতের মেলাঘর প্রশিক্ষণ ক্যাম্পে গেরিলা যুদ্ধের প্রশিক্ষণ নেন। আরবান গেরিলা যুদ্ধের জন্য বিশেষায়িতভাবে তৈরি করা হয়েছিল কমান্ডো ধাঁচের দলটি। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর স্পেশাল সার্ভিস গ্রুপের (এসএসজি) কর্মকর্তা, প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কমান্ডো ও প্যারাট্রুপার ছিলেন এ টি এম হায়দার। মুক্তিযুদ্ধে তাঁর তত্ত্বাবধানেই গড়ে ওঠেছিল ক্র্যাক প্লাটুন। বেশির ভাগ গেরিলাকে তিনি নিজেই প্রশিক্ষণ দিয়েছিলেন। এই গেরিলা দলটি অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে ‘হিট অ্যান্ড রান’ পদ্ধতিতে অসংখ্য আক্রমণ পরিচালনা করে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর মধ্যে ব্যাপক ত্রাস সঞ্চার করেছিল। বিশেষ করে একাত্তরের আগস্টে ঢাকার বুকে একের পর এক অভিযান চালিয়ে হানাদার বাহিনীর বুকে রীতিমতো কাঁপন ধরিয়েছিল ওই বিচ্ছু বাহিনী। Continue Reading →

মণি সিংহ : ইতিহাসের যুবরাজ

আজাদুর রহমান চন্দন

কমরেড মণি সিংহ একটি আদর্শের প্রতীক, একটি সংগ্রামের প্রতীক। বাংলাদেশের রাজনৈতিক ইতিহাসের প্রবাদতুল্য পুরুষ তিনি। ঔপনিবেশিক শৃঙ্খলে আবদ্ধ Moni Singhউপমহাদেশের শোষণমুক্তি ও জাতীয় মুক্তিসংগ্রামের প্রথম বার্তাবহদের একজন। বিদেশি শাসনের শৃঙ্খল থেকে উপমহাদেশকে মুক্ত করার সংগ্রামে অসহযোগ খেলাফত আন্দোলনের আমলে যে বিপ্লবী তরুণরা সর্বস্ব ছেড়ে সামনের সারিতে এসে যোগ দিয়েছিলেন, মণি সিংহ তাঁদের অন্যতম। ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদের পরাধীনতা থেকে উপমহাদেশকে স্বাধীন করার লড়াই এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতা, গণতন্ত্র ও সমাজতন্ত্রের সংগ্রামের দীর্ঘ ইতিহাসের মহানায়ক তিনি। দীর্ঘ সাত দশক ধরে জাতীয় মুক্তি ও স্বাধীনতার সংগ্রামের পাশাপাশি এ দেশের শোষিত-নিপীড়িত-মেহনতি মানুষের চূড়ান্ত মুক্তির জন্য কমিউনিস্ট আন্দোলন ও কমিউনিস্ট পার্টি গড়ে তোলার েেত্র যে অবদান তিনি রেখে গেছেন, বাংলাদেশের ইতিহাসে তা চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে। স্বাধীনতা সংগ্রামে মেহনতি জনতার ভূমিকা যাঁদের উদ্যোগে প্রবল ও প্রধান হয়ে ওঠে, মণি সিংহ তাঁদের অন্যতম। স্বাধীনতা সংগ্রামের কর্মকাণ্ডে সর্বহারা, কৃষক, মজুর ও বিত্তহীন বুদ্ধিজীবীদের আশা-আকাক্সাকে পুরোভাগে আনার চেষ্টা করেন তিনি। Continue Reading →